প্রিয়দর্শিনী মৌসুমীর জন্মদিন – News Pabna

ঢাকায় সিনেমার জনপ্রিয় মুখ মৌসুমী। ছোট থেকে বড় এক নামে চেনে এ অভিনেত্রীকে।

‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ সিনেমা দিয়ে ঢালিউডে অভিষেক তার। ‘দোলা’, ‘অন্তরে অন্তরে’, ‘দেনমোহর’ ও ‘স্নেহ’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করে দর্শকমহলে জনপ্রিয়তা লাভ করেন। এরপর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি এ অভিনেত্রীকে। মৌসুমী এখন পর্যন্ত অভিনয় করেছেন শতাধিক সিনেমায়।

ক্যালেন্ডারের পাতায় আজ ৩ নভেম্বর। মৌসুমীর পরিবার ও ভক্তদের কাছে একটি বিশেষ দিন। কারণ আজ জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমীর জন্মদিন।

মৌসুমী তার মেয়েকে নিয়ে কদিন আগেই ছুটি কাটাতে গেছেন আমেরিকায়। দুই সপ্তাহ মেয়েকে ঘুরে দেখেছেন সানফ্রান্সিসকোতে। এখন আছেন আটলান্টায় ছোট বোন চলচ্চিত্র জগতের আরেক নায়িকা ইরিনের বাসায়। নায়িকা মৌসুমীর মা আছেন ছোটবোন ইরিনের বাসায়। ইরিন অনেকদিন হলো স্থায়ী হয়েছেন আমেরিকায়। এবারের জন্মদিন মৌসুমী তার মা ও ছোট বোনের সঙ্গে কাটাবেন।

জন্মদিন উপলক্ষে মৌসুমী গণমাধ্যমে জানান, জন্মদিন এলে মানুষের ভালোবাসার প্রকাশ বেশি করে ঘটে। মানুষ আমাকে কতটা ভালোবাসে তা বুঝতে পারি। মানুষের ভালোবাসা নিয়েই একটি জীবন পাড়ি দিতে চাই। ‘জন্মদিনে দেশকে মিস করছি। সানীকে মিস করছি। পুত্র ও পুত্রবধূকে মিস করছি। ওরা দেশে আছে। মেয়েকে নিয়ে আমি আমিরেকায়।’

অনেক বছর পর এবারের জন্মদিনে মায়ের সঙ্গে কেক কাটবেন মৌসুমী। তার কাছে এই মুহূর্ত হয়ে থাকবে স্মরণীয়।

মৌসুমী তার অভিনীত সিনেমা ‘মেঘলা আকাশ’, ‘তারকাটা’ এবং ‘দেবদাস’ এর জন্য পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। এ ছাড়াও বাচসাস পুরস্কার পেয়েছেন ৬ বার, পেয়েছেন মেরিল প্রথম আলো পুরস্কার। এছাড়াও তার ঝুলিতে রয়েছে অসংখ্য পুরস্কার।

দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন এ অভিনেত্রী। অভিনয়ের পাশাপাশি পরিচালকের খাতায় লিখিয়েছেন নাম। ২০০৩ সালে ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’ দিয়ে মৌসুমী চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। পরবর্তীতে ২০০৫ সালে পরিচালনা করেন ‘মেহের নিগার’। ২০১৬ সালে শূন্য হৃদয় নামে একটি টেলিফিল্ম পরিচালনা করেন।

মৌসুমী ১৯৯৬ সালে গরিবের রানী ছায়াছবি দিয়ে প্রযোজকের খাতায় নাম লেখান। চলচ্চিত্র প্রযোজনার লক্ষ্যে তিনি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কপোতাক্ষ চলচ্চিত্র প্রতিষ্ঠা করেন। একই বছর এ প্রতিষ্ঠান থেকে মুশফিকুর রহমান গুলজারের পরিচালনায় ‘সুখের ঘরে দুখের আগুন’ ও মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালনায় ‘বউয়ের সম্মান’ সিনেমা প্রযোজনা করেন। এরপর দীর্ঘ ১৯ বছর পর তিনি আবার ‘আমি এতিম হতে চাই’ এর মধ্যদিয়ে চলচ্চিত্র প্রযোজনায় ফিরে আসেন। চলচ্চিত্রটি যৌথভাবে প্রযোজনা করেছেন মৌসুমী ও ঋদ্দি টকিজ।

চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি টেলিভিশন নাটক ও টেলিফিল্মে অভিনয় করেছেন। সেই সঙ্গে নাম লিখিয়েছেন উপস্থাপনায়ও। ২০১৬ সালে চিত্রগ্রাহক জেড এইচ মিন্টুর নির্দেশনায় ‘মেঘের আড়ালে’ টেলিফিল্মে অভিনয় করেন। এতে প্রথমবারের মতো একসাথে টেলিফিল্মে অভিনয় করেন মৌসুমী ও রিয়াজ। একই বছর ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আফতাব বিন তমিজের নির্দেশনায় ‘অতীত হারায়ে খুঁজি’ টেলিফিল্মে কাজ করেন। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেন ওমর সানি।

মৌসুমী গড়ে তুলেছেন ‘মৌসুমী ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন’ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। অসহায় মানুষের জন্য কাজ করেন এ ফাউন্ডেশনের ব্যানারে। ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূতও হয়েছিলেন প্রিয়দর্শিনী এ নায়িকা।

যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার আগে এ অভিনেত্রী দেশান্তর, সোনার চর ও ভাঙন সিনেমার কাজ শেষ করেন। ৩টি সিনেমায় সরকারি অনুদানের। অন্যদিকে একটি এক ঘণ্টার নাটক ও একটি বিজ্ঞাপনের শুটিংও শেষ করেছেন তিনি। দেশে ফেরার পর ৩টি সিনেমার ডাবিং করবেন।

১৯৭৩ সালের ৩ নভেম্বর খুলনা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন মৌসুমী। তার বাবার নাম নাজমুজ্জামান মনি এবং মায়ের নাম শামীমা আখতার জামান। ছোটবেলা থেকেই একজন অভিনেত্রী এবং গায়িকা হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু। এরপর তিনি ‘আনন্দ বিচিত্রা ফটো বিউটি কনটেস্ট’ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হন, যার ওপর ভিত্তি করে তিনি ১৯৯০ সালে টেলিভিশনের বাণিজ্যিক ধারার বিভিন্ন অনুষ্ঠান নিয়ে হাজির হন।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Next News BD Powered By : Code Next IT